লিভারের বিভিন্ন সমস্যা থেকে বাঁচতে যে খাবারগুলো কখনোই খাবেন না

লিভারের বিভিন্ন সমস্যা

আমরা প্রতিদিন যেসব খাবার খাচ্ছি সেগুলো আমাদের স্বাস্থ্যের জন্য কতটুকু উপকারী তা খেয়াল রাখা দরকার। অনেক সময় বন্ধুদের সাথে আড্ডা দিতে গিয়ে বিভিন্ন ধরনের ক্ষতিকর ও অস্বাস্থ্যকর খাবার আমরা খাচ্ছি। যেমন বিভিন্ন ধরনের ড্রিংস, ফাস্ট ফুড, ভাজাপোড়া খাবার যা আমাদের স্বাস্থ্যের জন্য কখনোই উপকারী নয়. এই খাবারগুলো খাওয়ার কারণে আমাদের লিভার হয়ে পড়ছে চর্বিযুক্ত ও অসুস্থ্য। আমাদের স্বাস্থ্য ভালো রাখতে একটি সুস্থ্য লিভার বিশেষ ভূমিকা রাখে। তাই আমাদের সকলকে খাবার খাওয়ার ক্ষেত্রে বিশেষ সতর্ক হওয়া প্রয়োজন।

এলকোহল

আপনি প্রতিদিন এলকোহল পান করছেন কিন্তু এর ক্ষতিকর দিকগুলো কি তা নিশ্চয়ই জানেন না. আপনি যদি জানতেন এলকোহল সেবনের সবচেয়ে ক্ষতিকর দিকগুলোর মধ্যে অন্যতম হচ্ছে লিভার অসুস্থ্য হয়ে পড়া. শুধু লিভার নয় এই এলকোহল আপনার স্মৃতিশক্তি হ্রাস, মস্তিষ্কের ক্ষতি, ক্যান্সারসহ বিভিন্ন মরণব্যাধি সৃষ্টি করতে পারে. এছাড়াও এলকোহলের কিছু সাধারণ ক্ষতিও রয়েছে তার মধ্যে অন্যতম উচ্চ রক্তচাপ ও মেজাজ খিটখিটে হয়ে যাওয়া। এটাকে কখনোই সাধারণ সমস্যা ভাববেন না, খিটখিটে মেজাজ থাকার কারণে অকারণেই সবার সাথে খারাপ আচরণ করবেন। আর সবার সাথে খারাপ ব্যবহার করার কারণে আত্মীয়দের কাছ থেকে ধীরে ধীরে দূরে চলে যাবেন. গর্ববতী মহিলাদের কখনোই এলকোহল খাওয়া করা উচিত নয়. এতে এলকোহল সিনড্রোম হয়ে মারা যাওয়ার সম্বাবনা বেশি থাকে। তাই আমাদের সকলকে এলকোহল সেবনে সতর্ক হয় জরুরী।

মিষ্টিজাতীয় খাবার

মিষ্টিজাতীয় খাবারগুলো সবার কাছেই অনেক জনপ্রিয়। ছোট ও বড় সবার কাছেই অনেক পছন্দের এইজাতীয় সুস্বাদু খাবার। তবে মিষ্টিজাতীয় খাবারের অনেক ক্ষতিকর দিক রয়েছে তাই নিয়ম মেনে আমাদের এইজাতীয় খাবার খাওয়া উচিত। বিশেষ করে ডায়বেটিস ও ফ্যাটি স্বাস্থ্যের রোগীদের মিষ্টিজাতীয় খাবার খাওয়ার বিষয়ে সতর্ক হওয়া দরকার। এইজাতীয় খাবার বেশি খেলে লিভারে ও শরীরে ফ্যাট জমাতে থাকে এতে লিভারের কার্যক্ষমতা কমে যায়. মিষ্টিজাতীয় খাবার বেশি খাওয়ার কারণে শরীরের মেদ বেড়ে যায় এবং ওজন বাড়তে থাকে। এইজাতীয় খাবার বেশি খাওয়ার কারণে শরীরে বিভিন্ন ধরনের রোগ দেখা দিতে পারে সেগুলোর মধ্যে ডায়বেটিস, রক্ত সঞ্চালনে বাধা প্রধান করা ইত্যাদি অন্যতম। তাই মিষ্টিজাতীয় খাবার খাওয়ার ক্ষেত্রে বিশেষ সতর্কতা অবলম্বণ করা প্রয়োজন।

ভোজ্যতেল

আমরা সবাই জানি সবধরণের মূখরোচক খাবার তৈরি করতে প্রয়োজন হয় ভোজ্যতেল। আর আজকাল আমরা মুখরোচক খাবারের প্রতি খুব বেশি আকৃষ্ট হয়ে পড়ছি। বিশেষ করে ফাস্টফুড জাতীয় খাবারের প্রতি ছোট ও মধ্যবয়সীদের বেশি আগ্রহের জন্য ফ্যাটি স্বাস্থ্য ও লিভারের সমস্যা বেড়ে যাচ্ছে। এইধরনের খাবারে আছে অত্যধিক পরিমানে কোলেস্টেরল যা লিভারের বিভিন্ন সমস্যা, ডায়বেটিস, হজমের সমস্যা, উচ্চ রক্তচাপ, শরীরের ওজন বৃদ্ধি, রক্ত চলাচলে বাধা, হার্টের সমস্যাসহ বিভিণ্ণ ধরনের মারাত্মক রোগ তৈরি করতে পারে। আর খেয়াল রাখতে হবে আগে ব্যবহৃত ভোজ্যতেল দিয়ে একাধিকবার খাবার রান্না করা ঠিক নয়. এই ধরনের পোড়া ভোজ্যতেল দিয়ে রান্না করা খাবার স্বাস্থ্যের জন্য মারাত্মক ক্ষতি বয়ে আনতে পারে। সুস্থ থাকতে হলে আমাদের ভোজ্যতেল দিয়ে রান্না করা খাবার যতটুকু সম্ভব কম খেতে হবে.

কাঁচা লবন

আমরা সবাই জানি যেকোন খাবারের স্বাদ বজায় রাখতে হলে লবণের ভূমিকা অপরিসীম। লবন ছাড়া খাবার খাওয়া কখনোই সম্ভব নয় কিন্তু অতিরিক্ত পরিমানে লবন খাওয়া দেহের জন্য বড় ধরনের ক্ষতি বয়ে আনতে পারে। লবন বেশি খাওয়া হলে রক্তচাপ বৃদ্ধি, লিভারের ক্যান্সার, কিডনির কার্যক্ষমতা হ্রাস, হাঁপানি, স্থূলতা, জলীয় পদার্থ বৃদ্ধি, হার্টের সমস্যার মতো বিভিন্ন ধরনের কঠিন রোগের সৃষ্টি হতে পারে। আমরা জানি একটি সুস্থ্য লিভার আপনাকে রাখতে পারবে সম্পূর্ণ সুস্থ্য ও সবল. তাই সুস্থ্য থাকতে এবং লিভারের কার্যক্ষমতা ঠিক রাখতে কাঁচা লবন খাওয়া বন্ধ করুন। অতিরিক্ত লবন খাওয়ার দরকার পড়লে রান্না করার সময় খাবারে সামান্য পরিমানে লবন বেশি দিয়ে দিন। তাহলে রান্না করা খাবার খাওয়ার সময় কাচা লবন নেওয়ার প্রয়োজন পড়বে না।

রেফারেন্সঃ

bd-pratidin.com

eisamay.indiatimes.com

এই ওয়েবসাইটে আপনি পাবেন সম্পূর্ণ বাংলা ভাষায় বিভিন্ন ধরনের জানা ও অজানা সকল তথ্য। যে তথ্যগুলো আপনাকে দৈনন্দিন জীবনযাত্রায় অনেক ধরনের সাহায্য করতে পারে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Next Story

নিয়মিত যে ৫ টি খাবার খেলে ফ্যাটি লিভার সমস্যা থেকে মুক্তি পাবেন